জাতীসংঘের আন্ডার সেক্রেটারী জেনারেল হলেন বাংলাদেশী রাবাব ফাতিমা

http://www.71news24.com/2019/03/18/1128

শেখ গফ্ফার রহমান, স্টাফ রিপোর্টারঃ

জাতীসংঘের আন্ডার সেক্রেটারী জেনারেল হয়েছেন সংস্থাটিতে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাবাব ফাতিমা। জাতীসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বৃহস্পতিবার তাঁকে স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি), স্থলবেষ্টিত উন্নয়নশীল দেশ (এলএলডিসি) ও ক্ষুদ্র দ্বীপপুঞ্জের উন্নয়নশীল দেশের (এসআইডিএস) জ্যেষ্ঠ প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছেন।

 

জাতীসংঘের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, রাবাব ফাতিমা জাতীসংঘের ইউএন-ওএইচআরএলএলএসের জ্যেষ্ঠ প্রতিনিধি হিসেবে জামাইকার কোর্টেনে র‌্যাটরের স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন।

 

পেশাগত কূটনীতিক রাবাব ফাতিমার দ্বিপক্ষীয় ও বহুপক্ষীয় কূটনীতি, নীতিমালা প্রণয়ন, অ্যাডভোকেসি এবং প্রকল্প পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ৩০ বছরের বেশী অভিজ্ঞতা রয়েছে।

 

নিউ ইয়র্কে জাতীসংঘের সদর দপ্তরে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগের আগে ২০১৬ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়ীত্ব পালন করেছেন রাবাব ফাতিমা। এর আগে ২০১৫ সাল এবং ২০১৬ সালে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক ছিলেন তিনি।

 

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থায় (আইওএম) দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করেছেন রাবাব ফাতিমা। তিনি ২০০৭ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত আইওএমের দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক প্রতিনিধি হিসেবে দায়ীত্ব পালন করেছেন। পরে ২০১২ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত সংস্থাটির দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিম এশিয়ার আঞ্চলিক উপদেষ্টা এবং জলবায়ু পরিবর্তন ও অভিবাসন বিষয়ক আঞ্চলিক উপদেষ্টা ছিলেন।

 

রাবাব ফাতিমা এর আগে ২০০৬ সালও ২০০৭ সাল এই দু-বছর লন্ডনে কমনওয়েলথ সচিবালয়ে মানবাধিকার প্রধান ছিলেন। জাতিসংঘের দেওয়া তথ্যে বলছে, ১৯৮৯ সালে থেকে দীর্ঘ সময় বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন পদ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক, সুইজারল্যান্ডের জেনেভা, ভারতের কলকাতা এবং গণচীনের বেইজিংয়ে বাংলাদেশ মিশনে বিভিন্ন পদে কাজ করেছেন।

 

তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টুফটস বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্লেচার স্কুল অব ল অ্যান্ড ডিপ্লোমেসি থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও কূটনীতিতে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি অস্ট্রেলিয়ার ইউনিভার্সিটি অব ক্যানবেরা থেকে সমাজবিজ্ঞানে স্নাতক করেছেন।